• শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ১২:০১ পূর্বাহ্ন



আজ জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের জন্মদিন

Reporter Name / ৬১ Time View
Update : শনিবার, ২৬ জুন, ২০২১



নিজস্ব প্রতিবেদক :

বাংলাদেশের রাজনীতিতে যে কজন ক্ষণজন্মা মানুষ, স্বীয় প্রতিভা ও কর্মগুণে খ্যাতি অর্জন করেছেন এবং বাঙালি জাতিকে তার আসন পাকাপোক্ত করতে সমর্থ হয়েছেন তাদের মধ্যে অন্যতম জাতীয় চার নেতার একজন শহীদ এ এইচ এম কামারুজ্জামান হেনা (১৯২৩-১৯৭৫) স্মরণীয়।

সৎ ও দেশপ্রেমিক নেতা শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের ৯৮তম জন্মবার্ষিকী আজ।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে যে কজন ক্ষণজন্মা মানুষ স্বীয় প্রতিভা ও কর্মগুণে খ্যাতি অর্জন করেছেন এবং বাঙালি জনজীবনে নিজের আসন পাকাপোক্ত করতে সমর্থ হয়েছেন তাঁদের মধ্যে জাতীয় নেতা শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান একজন।

তিনি ১৯২৩ সালে ২৬ জুন তৎকালীণ বৃহত্তর রাজশাহীর জেলার নাটোর মহকুমার বাগাতিপাড়া থানার মালঞ্চী রেলস্টেশন সংলগ্ন নূরপুর গ্রামে মাতুলালয়ে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈত্রিক নিবাস রাজশাহী শহরের কাদিরগঞ্জ মহল্লায়।

দেশভাগের আগে থেকেই তিনি রাজনীতিতে সক্রিয় অবদান রেখে গেছেন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে তাঁর অবদানের কথা জাতি চিরদিন শ্রদ্ধার সঙ্গে মনে রাখবে। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি মুজিবনগর সরকার গঠন এবং যুদ্ধ পরিচালনায় দক্ষতা ও যোগ্যতার পরিচয় দিয়েছিলেন।  মুজিবনগর সরকারে তাকে স্বরাষ্ট্র,কৃষি এবং ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

দীর্ঘ ৩৩ বছরের রাজনৈতিক জীবনে তিনি কখনোই নির্বাচনে পরাজিত হননি।

তাঁর পুরো নাম আবুল হাসনাত মোহাম্মদ কামারুজ্জামান হলেও তাকে সবাই ‘হেনা’ নামেই ডিাকতেন।

কামারুজ্জামান চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল থেকে ১৯৪২ খ্রিস্টাব্দে ম্যাট্রিক পাসের পর কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে ১৯৪৬ খ্রিস্টাব্দে অর্থনীতিতে অনার্সসহ স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৫৬ খ্রিস্টাব্দে তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘ল’ পাশ করেন।

রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হিসেবে তিনি ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ১৯৪২ খ্রিস্টাব্দে নিখিল বঙ্গ মুসলিম ছাত্রলীগের রাজশাহী জেলা শাখার সম্পাদক এবং ১৯৪৩ থেকে ১৯৪৫ পর্যন্ত নিখিল বঙ্গ মুসলিম ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন।

কামারুজ্জামানের ছয় সন্তানের মধ্যে সবার বড় অ্যাডভোকেট খায়রুজ্জামান লিটন বর্তমানে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এবং রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

এই গুণী রাজনৈতিকসহ আরও তিন নেতাকে ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে গুলি করে হত্য করা হয়।

নির্ভীক সংবাদ ডটকম।




আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category