কুয়াশা মোড়া শীতের সকাল


নির্ভীক সংবাদ24   প্রকাশিত হয়েছেঃ   ৭ ডিসেম্বর, ২০২০

অপরুপ রুপবৈচিত্রের দেশ আমাদের বাংলাদেশ। শীতকাল হলো দেশের ঋতুচক্রের পঞ্চম ঋতু। দরিদ্রদেশ হিসেবে এই শীত নানা দূর্ভোগ ও সমস্যা নিয়ে আগমন করলেও সংগে নিয়ে আসে বিশাল এক আনন্দউল্লাসের নানা উপকরন। যা আমাদের মনকে আনন্দে ভরিয়ে দেয়।

কুয়াশা মোড়া শীতের সকাল। যা গ্রামের মানুষের পরিচিত দৃশ্য।হাড় কনকনে শীতে জবুথবু একটি গ্রামের ভোর। কুয়াশা ঢাকা কিষান বাড়ির উঠোনের একপ্রান্তেগনগনে জলন্ত উনুন।সে আগুনের আঁচে উনুনের ধারঘেষে বসে আছে ভিড় করে ছেলেবুড়ো সকলে।

শৈশবে  শীতের এক আলাদা অনুভূতি ছিল। কুয়াশায়আচ্ছন্ন শীতের সকাল! মুখ খুললেই ধোঁয়া বের হওয়াদেখে অবাক হয়ে যাওয়া। ভাপা, চিতই, পাটিসাপটা, পুলি, কুলি নানা ধরনের পিঠা। ঘুম ভাঙ্গলেও বিছানা ছেড়ে উঠতে মন না চাওয়া তুলে রাখা তোরঙ্গের লেপকাঁথা কম্বলের সে এক দারুন মজা। রোদে দেওয়া ওম।তুলোর ফাঁকে ঢুকে থাকা রোদের গন্ধ। সন্ধ্যাকাশে দিগন্তজুড়ে সারি বেঁধে উড়ে চলা অতথি পাখির দল। কিচির-মিচির শব্দ শীতের প্রকৃতিকে করে তুলতো অন্যরকম নবরুপে।

যদিও শহরের জীবনে শীতের আবেদন আলাদা। শহরে থেকে গ্রামের প্রকৃত শীতের মজা পাওয়া সম্ভব না। বাংলার পথে-প্রান্তরে, মাঠেঘাটে তাকালেই চোখে পড়ে খেজুর গাছের আগায় ঝুলছে ছোট্ট রসের হাড়ি। কোথাওগাছ থেকে রস নামানোর প্রস্তুতি নিচ্ছেন গাছিরা। আর ফসলের মাঠজুড়ে সোনালি আভায় সকাল সন্ধ্যা হিম কুয়াশা। খাবারের খোঁজে খাল-বিল আর মাঠে-ঘাটে ঝাঁকে ঝাঁকে নামে সাদা বকের ঝাঁক। যা দেখতে খুব মজা লাগে। ঝাঁকে ঝাঁকে সাদাফুলের মত বসে থাকা বকের শুভ্রতা সেও এক অপরূপা দৃশ্য। গ্রামও শহরেরহাঁট বাজারগুলোতে সবব্জী  ডালায় ডালায় থরেথরে সাজানো শীতের সবজী, ফুলকপি, নতুন আলু,বাঁধাকপি, মূলা, ওলকপি, গাজর, টমেটো চোখ জুড়ায়, মন ভরায়।

শীতের আরেক  সৌন্দর্য্য বিরাজ করে সরিষা ক্ষেত।মাঠের পর মাঠ জুড়ে ফুটে থাকা হলুদ সরিষার ফুল যেন বিছিয়ে রাখে হলুদ ফুলেল চাদর। আর সেই ফুলকলিদের উপর উড়ে চলা রঙ্গিন প্রজাপতি আর মৌমাছিদের মেলা মন হরন করে।

পৃথিবীর যেখানেই যাই না কেনো সে সৌন্দর্য্যের তুলনা হয়না বুঝি আর কিছুর সাথেই। আমাদের দেশের মত এত সুন্দর দেশ আর কোথাও দেখতে পাওয়া যায় না। আর যাবেও না।

লেখক ও সাংবাদিক ফরিদ আহমেদ আবির

Total view = 473