• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৬:১২ অপরাহ্ন

নওগাঁয় ধর্ষণ চেষ্টা ও চাঁদাদাবি মামলার আসামী বরকতকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

Reporter Name / ১১৪ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ১৯ মে, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক

নওগাঁর মহাদেবপুরে ধর্ষণ চেষ্টা ও চাঁদাদাবির অভিযোগ মামলা তুলে নিতে বাদীকে প্রাণনাশের হুমকী শিরোনামে গত শনিবার সংবাদ প্রকাশের পর মামলার অন্যতম আসামী হাতুড় গ্রামের মৃত ইসমাইলের পুত্র ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি মোঃ বরকতকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে থানার এসআই ছাইফুল ইসলাম,ও এ এসআই শামীম সঙ্গীয় ফোর্সসহ অভিযান চালিয়ে ধাওয়া করে গাহলী এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করেন। গত ২০ এপ্রিল বরকত সহ পাঁচজনকে আসামী করে হাতুড় গ্রামের মৃত ইউসুফ আলীর মেয়ে ফরিদা পারভীন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে আদালতে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর থেকে বরকতসহ অন্য আসামীরা মামলা তুলে নেয়ার জন্য বাদীকে হুমকী দিয়ে আসছিলেন। মামলা তুলে না নিলে বাদীর পরিবারকে মারপিট, বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেয়া, উচ্ছেদসহ প্রাণনাশের হুমকী দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ৭ এপ্রিল উপজেলার হাতুড় গ্রামের মৃত ইউসুফ আলীর মেয়ে ফরিদা পারভীন (৩২) এর সাথে পাশ্ববর্তী উখরইল গ্রামের রফিকুল ইসলামের বিয়ে হয়। বিয়ের রাতে ফরিদা পারভীন মায়ের বাড়িতে অবস্থানকালে হাতুড় গ্রামের মৃত ইসমাইলের পুত্র মোঃ বরকত, সাদেকুল ইসলামের পুত্র মাহাবুব আলম সাদ্দাম, মৃত নাজিম উদ্দীনের পুত্র শাহাজান, মৃত মফি মন্ডলের পুত্র আতাউর রহমান ও উখরইল গ্রামের মৃত ওমির উদ্দীনের পুত্র আজাহার রাত সাড়ে আটটার দিকে জোরপূর্বক বাড়িতে ঢুকে তাদেরকে চাঁদা না দিয়ে বিয়ে করার অপরাধে মারপিট শুরু করেন।

এ সময় তাদের কাছ থেকে ২ লক্ষ টাকা চাঁদাদাবি করা হয়। আসামীরা চাঁদার দাবীতে ফরিদা পারভীনের স্বামী রফিকুল ইসলামকে মারপিট করে এক হাত ভেঙে দেয় এবং রফিকুল ইসলামকে বাড়ির ভিতরে কাঁঠাল গাছের সাথে বেঁধে রেখে স্ত্রী ফরিদা পারভীনকে মারপিট ও বিবস্ত্র করে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়।
এ ব্যাপারে মহাদেবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আজম উদ্দীন মাহমুদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এ মামলার অন্যতম আসামী বরকতকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category