প্রধান শিক্ষক ও সভাপতিকে ঘুষ না দেয়ায় সহকর্মীর বেতন বন্ধ !


নির্ভীক সংবাদ24   প্রকাশিত হয়েছেঃ   ১২ নভেম্বর, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক: দাবিকৃত ঘুষের টাকা না দেয়ায় রাজশাহীর দূর্গাপুর উপজেলার পুরান তাহিরপুরে এক সহকারী গ্রন্থাগারিক শিক্ষকের বেতন বন্ধ ও ঘুষদাবির অভিযোগ উঠেছে এক প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির বিরুদ্ধে।

অভিযোগে জানা গেছে, দূর্গাপুর উপজেলার পুরান তাহিরপুর গ্রামের মৃত. আব্দুল কাদের মৃধার ছেলে মোঃ সাইদুর রহমান মৃধা ৬ মার্চ ২০১১ সালে পুরানতাহিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী গ্রন্থাগারিক(লাইব্রেরিয়ান) পদে নিয়োগ পান এবং জুলাই মাস পর্যন্ত ১১০৫১৯০ নম্বর ইনডেক্সে এপিওভুক্ত হয়ে নিয়মিত বেতন ভাতা উত্তোলন করেন। কিন্তু গত আগষ্ট, সেপ্টেম্বর,অক্টোবর, তিনমাস অদ্যবধি কোন বেতন পাননি।

বিষয়টি নিয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা রাজশাহী জেলা শিক্ষা অফিসার দফতরে ১০ (অক্টোবর) ২০২০ তারিখে লিখিত অভিযোগ করেন সহকারী গ্রন্থাগারিক শিক্ষক সাইদুর রহমান মৃধা।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা রাজশাহী জেলা শিক্ষা অফিসার দফতর থেকে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে সেখানে বলা হয়েছে,
চলতি বছরের জুলাই মাস পর্যন্ত ১১০৫১৯০ নম্বর ইনডেক্সে এপিওভুক্ত হয়ে নিয়মিত বেতন ভাতা উত্তোলন করেন সহকারী গ্রন্থগারিক সাইদুর রহমান মৃধা। কিন্তু আগষ্ট-২০২০ হতে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ তার বেতন ভাতা প্রদান করেননি কি কারনে তার বেতন ভাতা বন্ধ করা হয়েছে। তার যৌক্তিক ব্যাখা চেয়েছে নোটিশে বলা হয়েছে, যৌক্তিক কারন না থাকলে দ্রুত তম সময়ের মধ্যে বেতন ভাতা চালু করতে ও নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এই মর্মে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা রাজশাহী জেলা শিক্ষা অফিসার মোহা: নাসির উদ্দীন।

শিক্ষক সাইদুর রহমান অভিযোগ করে বলেন,
নিয়োগকালীন ও পরবর্তীতে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইউসুফ আলী সরদার ও আহম্মদ আলী ৬০ হাজার টাকা দাবি করলে বেতনের জন্য একসঙ্গে এতো টাকা দিতে অপরগতা প্রকাশ করেন শিক্ষক সাইদুর রহমান মৃধা। ফলে গত আগষ্ট, সেপ্টেম্বর, অক্টোবর মাসের বেতন আটকিয়ে দিয়েছে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি।

বিষয়টি উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে অভিযোগ করার কথা বললে এতে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি পুরো পরিবারকে দেখে নেওয়ার ও চাকরিচ্যুত করার হুমকী দেন।

তিনি আরো বলেন, প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি একসঙ্গে এতটাকা আমার কাছে ঘুষ চাইলে আমি অপারগতা জানলে তিনি সহ বিদ্যালয়ের সভাপতি আমাকে ঘুষ দেবার জন্য চাপ দেন। এবং পুরো বেতন চলে যাবে বলেও হুমকি দেয়। প্রধান শিক্ষক ও বিদ্যালয়ের সভাপতি ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে বেতন বন্ধ করে দেন। করোনাকালে আমি অনেক আর্থিক সমস্যায় ছিলাম। তারা আমাকে চাকরিচ্যুত করার হুমকী ও দিচ্ছেন প্রতিনিয়ত ।

বিদ্যালয়টির একাধিক শিক্ষক বলেন, প্রধান শিক্ষক ও বিদ্যালয়ের সভাপতি পেশিশক্তিতে একক সিদ্ধান্তে প্রতিষ্ঠানটিকে দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত করেছেন। প্রতিবাদ করলে চাকরিচ্যুত করার হুমকী দেয়। মেধাবি শিক্ষক সাইদুর অন্যায়ের প্রতিবাদ করায় তাকে চাকরিচ্যুত করার ষড়যন্ত্র করছেন প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি । ঊর্ধ্বতন মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।

প্রসঙ্গত,পুরান তাহিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে নৈশ্যপ্রহরী পদে নিয়োগ পেতে তিন লাখ ২০ হাজার টাকা ‘জামানত’ দিয়েছেন শারীরিক প্রতিবন্ধী যুবক রইচ উদ্দিন (২৮)। কিন্তু তার চাকরি হয়নি। জামানতের টাকাও ফেরত পাননি। তাই বাধ্য হয়ে তিনি জেলা রাজশাহীর দুর্গাপুর সহকারী জজ আদালতে গত বৃহস্পতিবার তিনি একটি মামলা দায়ের করেছেন।

এতে পুরান তাহিরপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও প্রধান শিক্ষকসহ ১২ জনকে বিবাদী করা হয়েছে।

প্রধান শিক্ষক ইউসুফ আলী সরদার স্কুলের প্যাডে দেয়া একটি অঙ্গীকার নামায় ২০১৯ সালের ৩০ মার্চ রইচের কাছ থেকে নগদ তিন লাখ ২০ হাজার টাকা নেন।

অঙ্গীকারনামায় লেখা আছে, ‘রইচের কাছ থেকে ‘জামানত স্বরুপ’ তিন লাখ ২০ হাজার টাকা নেয়া হলো। তার চাকরি স্থায়ী করা না হলে সম্পূর্ণ টাকা একসঙ্গে নগদে ফেরত দেয়া হবে।’
এরকম ডজন অভিযোগ রয়েছে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ কমিটির সভাপতির বিরুদ্ধে।

অনিয়ম ও দুর্নীতির কারনে গত ৯ নভেম্বর তারিখে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড রাজশাহী পুরানতাহিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির ৬ জন সদস্যরা ২৯ /১০/২০২০ তারিখে পদত্যাগ করেছে ও এডহক কমিটি গঠন করার জন্য বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে চিঠি দেয় মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষাবোর্ড রাজশাহী।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পুরানতাহিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইউসুফ আলী সরদার ঘুষের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, যেহেতু অভিযোগ করেছে, সেহেতু তদন্ত কর্মকর্তাকে লিখিত বক্তব্য দেওয়া হবে। গণমাধ্যমে তথ্য দিতে বাধ্য নই। যা লেখার লিখে যান।

ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আহম্মদ আলীর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে গণমাধ্যমকর্মী পরিচয় পেয়ে তিনি ফোনটি কেটে দেন।

জেলা শিক্ষা অফিসার নাসির উদ্দীন জানান, বেতনের বিষয়টি নিয়ে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। তাছাড়া রইচ উদ্দীন নামে একব্যক্তি একটি মামলা দায়ের করেছে, মামলার কাগজ পেয়েছি, বলে তিনি আর কোন মন্তব্য করতে চাননি।

নির্ভীক সংবাদ ডটকম

Total view = 1.85k