• সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:১৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
মান্দায় ভূমিহীনদের জমি রক্ষার্থে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ বিভিন্ন সেবা নিয়ে ফের মাঠে নামছে জামিল ব্রিগেড নাচোলের ওসি সেলিম রেজার অশ্রুসিক্ত বিদায়; নতুন ওসি মিন্টু রহমানের যোগদান রাজশাহীতে ডিবি’র অভিযানে ইয়াবাসহ কুখ্যাত নারী মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নীলফামারীতে ক্ষুদ্র কাপড় ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির উদ্যোগে কম্বল বিতরণ তিন দিনেও মামলা রেকর্ড করেনি পুলিশ সন্ত্রাসী কায়দায় এক কৃষকের দেড় বিঘা জমির শরিষা লুট করোনা আক্রান্ত রাসিক মেয়র লিটনের সুস্থতা কামনা করেছেন আরইউজে নেতৃবৃন্দ কেশরহাটে মেডিসিন কর্ণারের উদ্বোধন নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থীদের সমর্থন প্রমাণ হলে পদত্যাগ করবো এমপি ডা. মনসুর চেয়ারম্যান সুমনের নেতৃত্বে ভারশোঁ ইউপি উন্নয়নের মহাসড়কে



বাংলাদেশে-বিভিন্ন কারণে ক্রমাগত বাড়ছে আবাসন খাত

Reporter Name / ২৩ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০২২



নির্ভীক সংবাদ ডেস্কঃ

উন্নয়নে বাংলাদেশের দ্রুত অগ্রযাত্রারর মতো, আবাসন খাতেও ক্রমবর্ধমান চাহিদা, মধ্যবিত্তের অন্তর্ভুক্তি এবং মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি খাতটিকে ক্রমশ বড় হতে সাহায্য করেছে। ১৯৭০ সালে দেশটিতে মাত্র ৫টি নিবন্ধিত রিয়েল এস্টেট কোম্পানি ছিল, যেখানে ২০১৩ সালে ছিল প্রায় ৮০০টি কিন্তু এখন এই ব্যবসায়ে ১০৭৩টি নিবন্ধিত কোম্পানি রয়েছে; যার মধ্যে রিহাব (রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউসিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ) তালিকাভুক্ত কোম্পানি ৮৭৯টি। সূত্র: A24 News Agency

অনিবন্ধিত কোম্পানির সংখ্যা সামগ্রিক আবাসন খাত ব্যবসায় একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। ২০১৯ সালে বাজারের মোট বার্ষিক আয় ছিল ৫৮,০০০ কোটি টাকা এবং ২০১৯-২০২০ সময়ে এ খাত বার্ষিক ১০ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এখন আবাসন খাতের ধারণা শুধুমাত্র উন্নত অ্যাপার্টমেন্টের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয় বরং মডেল শহর, শপিং মল এবং বিভিন্ন অবকাঠামোও এর মধ্যে আছে। বার্ষিক প্রবৃদ্ধিতে বাংলাদেশের আবাসন খাতের অবদান শতকরা ৭.৯৬ শতাংশ।

এছাড়াও, এমএস বার, সিমেন্ট, ইট, বালি, সিরামিক টাইল, পেইন্ট এবং অন্যান্য ফিটিংসের মতো খাতটির সঙ্গে সম্পর্কিত শিল্প-কারখানাগুলি জাতীয় জিডিপিতে প্রায় ১২% অবদান রেখেছে। সর্বশেষ জনসংখ্যা শুমারি থেকে জানা যায় যে ২০২০ সালে আবাসনের মোট চাহিদা ছিল ০.৮ মিলিয়ন ইউনিট এবং ২০৩০ সালে তা বেড়ে হবে ১.১৪ মিলিয়ন ইউনিট।এছাড়াও ভ্যাট, নিবন্ধন ফি, ইউটিলিটি ফি ইত্যাদি নিয়ে এই খাত সরাসরি সরকারের রাজস্ব যোগ করবে প্রায় ৫.০ বিলিয়ন টাকা।

“কোভিড-১৯-এর শুরুতে, আমরা সত্যিই ভয় পেয়েছিলাম, কারণ আমাদের কর্মকর্তা, প্রকৌশলী এবং দৈনিক কর্মচারিরা কাজে যোগ দিতে পারছিলেন না। কিন্তু বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সরকারের মাধ্যমে ২০২০-২০২১ অর্থবছরের শুরুতে আবাসন খাতে করবিহীন অর্থ বিনিয়োগের বিষয়ে একটি সার্কুলার প্রকাশ করেছিল। এটি সে সময় এই খাতের টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে কাজ করে। সেই সময়ে আমরা প্রচুর প্রস্তুতকৃত ফ্ল্যাট, মেঝে এবং বাণিজ্যিক স্থান বিক্রি করেছি।

২০২১-২০২২ অর্থবছরেও আমরা চাই সরকার করবিহীন অর্থ বিনিয়োগের জন্য একই কৌশল অব্যাহত রাখুন যা এই খাতে একটি বিশাল ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। আমরা আমাদের এই খাত সম্পর্কিত শিল্পে জাতীয় অর্থনীতিতে জিডিপির ১২%-১৫% অবদান রাখি। গৃহঋণের সুদ একক ডিজিটে কমিয়ে আনার সরকারি উদ্যোগ এই খাতকে চাঙ্গা করার জন্য একটি উদ্দীপক।

এছাড়া, নিবন্ধন খরচ হ্রাস, জমি স্থানান্তর কর, স্ট্যাম্প শুল্ক এবং মিউটেশন খরচ ও জমি সংক্রান্ত কাগজপত্রের ডিজিটাইজেশন আবাসন খাত দ্রুত পুনরুদ্ধারের অন্যান্য প্রধান কারণ। রিহ্যাবের গবেষণা অনুযায়ী, গত ছয় মাসে এ খাতে প্রায় ৩,৫০০ কোটি কালো টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে।

অত্যাবশ্যকীয় নির্মাণ সামগ্রীর দামের ক্রমাগত বৃদ্ধি এবং সরবরাহের ঘাটতি দেশের আবাসন খাতে একটি বড় ধাক্কা দিয়েছে। শিল্প সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলেছেন, বেশ কয়েকটি প্রকল্প হয়েছে – যা কোভিড -১৯ বিধিনিষেধ শিথিল করার পরে পুনরায় শুরু হয়েছিল। মহামারির কারণে যা আবার স্থগিত করা হতে পারে নতুন সংকটের দিকে এগিয়ে যাওয়া, এটি খাতটির পুনরুদ্ধারের প্রচেষ্টাকে বাধাগ্রস্ত করবে। এ প্রেক্ষিতে গত ছয় মাসে ইস্পাতের দাম বেড়েছে ৩০ শতাংশ।

২০২১ সালের মার্চে এক টন ইস্পাত বিক্রি হয়েছে ৫২ হাজার টাকায় কিন্তু ঠিকাদার ও ডেভেলপাররা এখন প্রতি টন ইস্পাতের জন্য ৭৮ হাজার টাকা খরচ করছে। এদিকে সিমেন্টের দাম ৫০ কেজি বস্তায় বস্তা প্রতি ৩০ টাকা, পাথরের দাম প্রতি টনে ৩ হাজার টাকা এবং বালির দাম ট্রাকে ২ হাজার টাকা করে বেড়েছে।

এছাড়া, স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত এক পিস ইটের দাম বেড়েছে ১.৫ টাকা, অটো ব্রিকস ২.৫ টাকা, সিরামিক ইটের দাম ৫ টাকা এবং কংক্রিটের ইটের দাম ৮ টাকা। মেঝে এবং দেয়ালের টাইলসের দামও এই সময়ের মধ্যে বেড়েছে।“

রিহাব ভাইস প্রেসিডেন্ট কামাল মাহমুদ জানান, “যখন সবকিছু ঠিকঠাক চলছিল তখন বিভিন্ন কারণে প্রায় সব ধরনের নির্মাণ সামগ্রীর দাম বেড়েছে ১৫ থেকে ৫০ শতাংশ। সে জন্য আমরা যখন থমকে যাওয়া প্রকল্পগুলোর কাজ শুরু করেছি, ভবিষ্যতে এই হার আরও বাড়বে।” – থেমে থাকা প্রকল্পের বিভিন্ন শট – কেজিএসএম প্রপার্টিজের অফিসের বিভিন্ন শট – জনাব মনোয়ার এইচ মইনুলের অফিসের বিভিন্ন শট

কেজিএসএম প্রপার্টিজ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, মনোয়ার এইচ. মইনুল জানান, “কেজিএসএম গ্রুপের একটি সহযোগী হিসাবে, কেজিএসএম প্রপার্টিজ লিমিটেড ২০১৭ সালে ঢাকায় যাত্রা শুরু করে। আমরা খুব ভালো শুরু করেছি। আমরা জমি অধিগ্রহণ করেছি এবং একসঙ্গে ২- ৩টি প্রকল্প শুরু করেছি। কিন্তু যখন ২০২০ সালে, কোভিড-১৯ বিশ্বে শুরু হয়েছিল তখন আমাদের সমস্ত প্রকল্প প্রায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল এবং আমরা ভেবেছিলাম আমাদের প্রকল্পগুলি পুনরায় চালু করতে ৩-৪ বছর সময় লাগতে পারে। কিন্তু আমরা কিছুদিন পরেই ঘুরে দাঁড়ালাম।

শুধু আমাদের নয় পুরো আবাসন খাত এখন স্বাভাবিক হয়ে এসেছে। পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, রিহ্যাব উইন্টার ফেয়ার ২০২১-এ রিয়েলটররা ৪ বিলিয়ন টাকার অর্ডার পেয়েছে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়, আমাদের আবাসন খাত এখন সত্যিই খুব ভালো অবস্থানে রয়েছে। আপনি যদি আমাদের কথা বলেন, যে প্রকল্পটি আমরা জানুয়ারী ২০২১ এ চালু করেছি তার প্রায় ৫০ ভাগ ফ্ল্যাট বিক্রি হয়ে গেছে।

নির্ভীক সংবাদ ডটকম।। 




আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category