শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১, ০১:৫৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
দুর্গাপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা গোয়ালকান্দি ইউনিয়ন বাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আ.লীগ নেতা মাহাবুর সরকার মেম্বার নওপাড়া ইউপি বাসীসহ সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম রাজশাহী জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদকের সাথে সৌজন্যে সাক্ষাৎ করলেন জাহাঙ্গীর হোসেন এবার ঈদে নন-এমপিও শিক্ষকদের জন্য সুখবর হৃতদরিদ্র দুঃস্থদের মাঝে ভালুকগাছী ইউপি ছাত্রলীগের ঈদ উপহার বিতরণ ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ৪০ কিলোমিটার যানবাহনের চাপ রাজশাহীতে হিসাবরক্ষণ অফিসারকে প্রাণ নাশের হুমকির অভিযোগ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সাবেক সাংসদ মেরাজ উদ্দিনের মৃত্যুতে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন এর শোক করোনায় মানুষের ঈদযাত্রা উদ্বেগজনক: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

মসজিদের দানবাক্সে এবার মিললো পৌনে ২ কোটি টাকা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৩ আগস্ট, ২০২০
  • ৩৮ Time View

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের দান সিন্দুক থেকে এবার এক কোটি ৭৪ লাখ ৮৩ হাজার ৭১ টাকা পাওয়া গেছে। এটি এ যাবতকালের সর্বোচ্চ।

পাগলা মসজিদের দানবক্স খুললেই মিলে কোটি কোটি টাকা, বিদেশি মুদ্রাসহ সোনাদানা। প্রতিদিন দেশের নানা প্রান্ত থেকে হাজারো মানুষ মানত আদায় করতে ছুটে আসেন এ মসজিদে। তিন মাস পর পর মসজিদের দানবক্স খোলা হলেও এবার করোনা পরিস্থিতিতে দানবক্স খোলা হয় ছয় মাস পর।

সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে মসজিদের আটটি দান সিন্দুক খোলা হয়। টাকাগুলো প্রথমে বস্তায় ভরা হয়। এর পর শুরু হয় দিনব্যাপী টাকা গণনা। টাকা গণনায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদ-মাদরাসার ৬০ জন ছাত্র-শিক্ষক ছাড়াও রূপালী ব্যাংকের কর্মকর্তারা অংশ নেন।
অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা জানান, পাগলা মসজিদের দান সিন্দুক খুলে এবার এক কোটি ৭৪ লাখ ৮৩ হাজার ৭১ টাকা পাওয়া গেছে। টাকাগুলো রূপালী ব্যাংকে জমা করা হয়েছে। এ ছাড়া বৈদেশিক মুদ্রা ও স্বর্ণালঙ্কারও পাওয়া গেছে।মসজিদ পরিচালনা কমিটি সাধারণ সম্পাদক মো. মাহমুদ পারভেজ বলেন, পাগলা মসজিদে দান করলে বেশি সওয়াব হয় এবং মানত করলে পূর্ণ হয় মনো বাসনা। এমন বিশ্বাস থেকে এখানে প্রতিনিয়ত নগদ টাকা, গহনা, বৈদেশিক, গরু ছাগলসহ নানা সামগ্রী দান করে থাকেন নানা শ্রেণি-পেশা আর ধর্মের মানুষ।

মসজিদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. শওকত উদ্দিন ভূইয়া জানান, মসজিদ ও ইসলামী কমপ্লেক্সের খরচ চালিয়ে অবশিষ্ট টাকা জমা রাখা হয় ব্যাংকে। মসজিদের আয় থেকে জেলার বিভিন্ন মসজিদ-মাদরাসা ও এতিমখানার খরচও চলে। গত বছর টাকার পরিমাণ ছিল ৫ কোটি ৩৫ লাখ ৭৬ হাজার ১৭৭ টাকা।

মসজিদ কমিটির সভাপতি ডিসি সারোয়ার মুর্শেদ চৌধুরী টাকা গণনার কাজ পরিদর্শন করেন। এ সময় পাগলা মসজিদের সাধারণ সম্পাদক কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহমুদ পারভেজ উপস্থিত ছিলেন।

কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফার তত্ত্বাবধানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শফিকুল ইসলাম, পাগলা মসজিদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মুক্তিযোদ্ধা শওকত উদ্দীন ভুঞা, রূপালী ব্যংকের এজিএম অনুফ কুমার ভদ্র প্রমুখ টাকা গণনার কাজ তদারকি করেন।

কথিত আছে, খাস নিয়তে এই মসজিদে দান করলে মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হয়। সে জন্য দূর-দূরান্ত থেকেও অসংখ্য মানুষ এসে এখানে দান করে থাকেন। তবে করোনাভাইরাসের কারণে মসজিদে মুসল্লিদের চলাচল সীমিত এবং নারীদের প্রবেশাধিকার বন্ধ করে দেয়া হয়।
জনশ্রুতি আছে, পাগলবেশী এক আধ্যাত্মিক ব্যক্তি নরসুন্দা নদীতে মাদুর পেতে ভেসে এসে বর্তমান মসজিদের কাছে ধ্যানমগ্ন হন। ওই ব্যক্তির মৃত্যুর পর তার সমাধির পাশে এই মসজিদটি গড়ে উঠে। সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত মসজিদটি ‘পাগলা মসজিদ’ নামে পরিচিত।
নির্ভীক সংবাদ24ডটকম

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 nirviksangbad24.com
Design & Developed by: ATOZ IT HOST
Tuhin