সরকারি পুকুর দখল করে এলাকার প্রভাবশালী মামুনের মাছ চাষ


নির্ভীক সংবাদ24   প্রকাশিত হয়েছেঃ   ১৮ আগস্ট, ২০২০

মাজহারুল ইসলাম চপল,রাজশাহীঃ দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে সরকারি পুকুর অবৈধভাবে দখল করে মাছ চাষ করছেন স্থানীয় মোঃ মামুন নামের এক ব্যক্তি। ঘটনাটি রাজশাহীর গোদাগাড়ি উপজেলার রিশিকুল ইউনিয়নের আলোকছত্র গ্রামের মৃধার ডাং এলাকার।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার রিশিকুল ইউনিয়নের আলোকছত্র গ্রামের মৃধার ডাং পাড়ায় ১.৯ একর একটি পুকুর রয়েছে। যা সম্পুর্ন সরকারের খাস সম্পত্তি। মৌজা- আলোকছত্র, জেএল নং- ১২৪, দাগ নং- ৭১৭। এই পুকুরটি দীর্ঘদিন থেকে সরকার বিভিন্ন মেয়াদে টেন্ডার বা লীজ দিয়ে থাকে। সরকারের এই নিয়ম অনুসারে টেন্ডারের মাধ্যমে লীজ পায় পলাশ মৎসচাষী সমবায় সমিতি লিঃ। আর এই সমিতির পক্ষ থেকে ৩ বছর মেয়াদে ঐ পুকুরের মাছ চাষের জন্য অনুমিত দেয় আব্দুল্লাহ ইউসুফ রিপনকে। আব্দুল্লাহ ইউসুফ রিপন যথা নিয়ম অনুযায়ী সোনালী ব্যাংক গোদাগাড়ী শাখায় চলান ফরমের মাধ্যমে টাকা জমা দেন। যার কপি রয়েছে।

কিন্তু উক্ত পুকুরটি দীর্ঘদিন ধরেই অবৈধ্যভাবে জবর দখল করে রেখেছে মামুন নামের এক ব্যাক্তি। আব্দুল্লাহ ইউসুফ রিপন জানায় ( বাংলা)১৪২৭ সনের ১ লা বৈশাখ থেকে আমাকে দেওয়া হলেও আমি এখনো ঐ পুকুরটিতে যেতে পারছিনা। কারন মামুন নামের ঐ ব্যাক্তি আমাকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি প্রদান করছে। তিনি বলেন আমি বার বার এলাকার চেয়ারম্যান মেম্বারকে অবগত করলেও কোন সমাধান পাইনি। তিনি প্রশাসনের কাছে দাবি জানান তার নায্য ও হক সম্পত্তি যেন বুঝিয়ে দেওয়া হয় এই মর্মে গত ১৬ আগষ্ট ২০২০ তারিখে উপজেলা ভুমি অফিসের সহকারী কমিশনার (ভুমি) বরাবর একটি লিখিত অভিযোগও করেছেন।

বিষয়টি নিয়ে সরেজমিনে অনুসন্ধানে জানা যায়, এই পুকুরটি দীর্ঘদিন ধরে পাশের গ্রামের মামুন নামের এক ব্যাক্তি মাছচাষ করে আসছে। কি নিয়মে মাছচাষ করছে জানতে চাইলে এলাকাবাসী বলে পুকুরের ০৯ শতক জমি রয়েছে ব্যাক্তি মালিকানা আর ঐ ব্যাক্তি মালিকের নিকট থেকে অনুমতি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে গোটা পুকুরের মাছচাষ করে চলেছে । নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যাক্তি বলেন , পুকুর দখলকারি মামুন খুব খারাপ প্রকৃতির লোক। মামুন কাউকেই পরোয়া করেন না। তার সাথে কয়েকজন রয়েছে যারা সব সময় মামুনকে সাপোর্ট দেয়। তাদের নাম জানতে চাইলে বলেন, মামুনের এলাকার হাবিবুর রহমান ও মুস্তাফিজুর রহমান মুক্তা এরা সব সময় তার সাথেই থাকে আর মামুনকে সকল খারাপ কাজে সমর্থন করে। তাদের যোগসাজসে মাত্র কয়েকদিন আগেও এখান থেকে মাছ ধরেছে। তার মেয়াদ শেষ হলেও এই পুকুরের দখল দিবেনা কাউকে বলে।

এবিষয়ে পুকুর দখলকারি মামুনের সাথে ০১৭৩৭-১৫২২৮৬ নম্বারে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে ঐ পুকুরে মাছচাষ করে আসছি। আমার বিষয়ে চেয়ারম্যান জানে। আমি চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলে মাছচাষ করি। তার কাছে সরকারের দেওয়া লীজ বা অনুমতির কোন কাগজ আছে কি না জানতে চাইলে, তিনি শহরে এসে দেখা করার প্রস্তাব দেন। এবং দলের বিভিন্ন নেতাদের সাথে সক্ষতা আছে বলে জানান। তবে ঐ এলাকার অর্থাৎ রিশিকুল ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের স্থানীয় মেম্বার মজিবর রহমানের সাথে দেখা হলে তিনি বলেন, আমার এলাকাতে এরকম হওয়ার কোন সুযোগ নেই । কাগজ যার পুকুর তার। কাগজপত্র যদি ঠিক থাকে তাহলে অবশ্যই তাকে পুকুর দেওয়া হবে। কেউ যদি অন্যায় ভাবে পুকুর দখলের চেষ্টা করে তাহলে তাকে আইনের মাধ্যমে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।
নির্ভীক সংবাদ24ডটকম

Total view = 20