• বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ০৫:৪৭ পূর্বাহ্ন



স্বামীর পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় স্ত্রীকে মারপিট,অভিমানে অাত্মহত্যা!

নির্ভীক সংবাদ / ৭৫ Time View
Update : শনিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২১



মাহবুবুজ্জামান সেতু নওগাঁ: নওগাঁর মান্দায় স্বামীর পরকিয়ায় বাঁধা দেয়ায় স্ত্রীকে মারপিট; অভিমানে জেসমিন আক্তার (২৫) নামে এক গৃহবধূ বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গেছে।

এ ঘটনায় স্বামী ও শাশুড়ির বিরুদ্ধে প্ররোচণার মামলা দায়ের করা হয়েছে।

জেসমিন আক্তারের বাবা সাইদুর রহমান বাদি হয়ে বৃহস্পতিবার রাতে মান্দা থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

নিহত জেসমিন আক্তার মান্দা উপজেলার গনেশপুর ইউনিয়নের সূর্য নারায়নপুর গ্রামের আবদুস সাত্তার মোল্লার স্ত্রী ও দুই সন্তানের জননী।

তিনি নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার সফাপুর ইউনিয়নের ঘোনপাড়া প্রসাদপুর গ্রামের সাইদুর রহমানের মেয়ে।

স্থানীয়রা জানান, উপজেলার সূর্য নারায়নপুর গ্রামের তৈয়মুর মোল্লার ছেলে আবদুস সাত্তার মোল্লার সঙ্গে প্রায় ৯ বছর আগে প্রসাদপুর গ্রামের সাইদুর রহমানের মেয়ে জেসমিন আক্তারের বিয়ে হয়। বিয়ের সময় জামাইকে টাকাসহ বিভিন্ন উপঢৌকণও দেওয়া হয়েছিল।

মামলার বাদি সাইদুর রহমান জানান, বিয়ের পর থেকে পারিবারিক ছোট-খাটো বিষয় ও নেশাগ্রস্থ অবস্থায় বাড়ি ফিরে মেয়েকে প্রায়ই নির্যাতন করে আসছিল জামাই আবদুস সাত্তার। এনিয়ে এলাকায় একাধিকবার সালিশও হয়েছে। কিন্তু মেয়ের ওপর নির্যাতন বন্ধ হয়নি। শাশুড়ি সামেনা বেগমের সহায়তায় জামাই সাত্তার মেয়ের ওপর নির্যাতন করতেন বলে অভিযোগ করেন তিনি।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, নির্যাতনের সময় জামাই সাত্তার ও তার মা সামেনা বেগম প্রায়ই আত্মহত্যার জন্য প্ররোচিত করতেন মেয়েকে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে পরকিয়ায় বাধা দেয়ার বিষয় নিয়ে আবারো মারপিট করা হলে মেয়ে জেসমিন অভিমানে বিষপান করে। এরপর অসুস্থ অবস্থায় মান্দা হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

এ ঘটনায় জামাই সাত্তার মোল্লা ও তার মা সামেনা বেগমের বিরুদ্ধে মান্দা থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। বর্তমানে তারা পলাতক রয়েছেন। তবে স্থানীয়রা বিষয়টিকে ধামাচাপা দিতে উঠে লেগেছে বলে অভিযোগ করেন অনেকে। তাদের অভিযোগ যে, নিহতের লাশ ময়নাতদন্ত শেষে শুক্রবার বিকেলে সূর্যনারায়ণপুর গ্রামে নেয়া হলে সেখান সেখানে হাজার-হাজার উৎসুক জনতা ভীড় জমাতে থাকে। ওই সময় নিহতের বাবা মা এবং তাদের পরিবারের লোকজন শেষ বাড়ের মতো নিহতের লাশ দেখতে যান। কিন্তু ওই সময়ও তাদের সাথেও অসৌজন্যমূলক অাচরণ এবং মারপিট করে বেইজ্জতি করা হয়। তাদের অভিযোগ যে, যেই মেয়েটির সাথে তাদের দু:শ্চরিত্র জামাইয়ের স্থানীয় এক পরকিয়া প্রেমিকার বাড়ির লোকজনেরাই তাদেরকে বেইজ্জতি করা এবং মেয়ের মৃত্যুর জন্য দায়ী। অামরা এর সুষ্ঠ বিচার চাই।

মান্দা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহিনুর রহমান বলেন, নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নওগাঁ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
নির্ভীক সংবাদ ডটকম




আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category