মান্দার সতিহাটে মোবাইল ঠিক করতে এসে মারপিটের শিকার


নির্ভীক সংবাদ24   প্রকাশিত হয়েছেঃ   ২৩ আগস্ট, ২০২০

মান্দা প্রতিনিধি: নওগাঁর মান্দায় মোবাইল ঠিক করতে এসে মারপিটের শিকার হয়েছেন ২ বন্ধু। পূর্বশত্রুতার জের ধরে তাদেরকে মারপিট করে চাঁদা দাবি করাসহ নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে জোরপূর্বক স্বাক্ষর নেয়া এবং তাদের কাছে থাকা একটি (কে ওয়াই কে সি ১২৫ সিসি) মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে গত ২১ আগষ্ট (শনিবার) বিকেলে উপজেলার সতিহাট বাজারের ভাঙ্গা ব্রিজের পার্শ্বে শহীদ মিনার মার্কেট এলাকায় ।

জানা গেছে, মহাদেবপুর উপজেলার ৭ নং সফাপুর ইউপি’র হাতিমন্ডলা গ্রামের মৃত সামসুদ্দিন সরদারের ছেলে আহসান হাবিব (৪০) এবং তার বন্ধু একই উপজেলার দক্ষিণ লক্ষীপুর গ্রামের আনিছুর রহমানের ছেলে আমিনুর রহমান তারা দুজনে তাদের নিজ বাড়ি থেকে বের হয়ে একই গাড়িতে করে শনিবার বিকেলে সতিহাটে আসেন। উদ্দেশ্য ছিলো তাদের ব্যবহৃত নষ্ট হওয়া মোবাইল ফোনটি ঠিক করে নিয়ে বাড়িতে ফিরে যাওয়া।

অথচ, ওইদিন সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে সতিহাট বাজারের ভাঙ্গা ব্রিজের পার্শ্বে শহীদ মিনার মার্কেট এলাকায় জৈনক মোবাইল মেকারের নিকট থেকে তাদের নষ্ট হওয়া মোবাইলটি ঠিক করে নিয়ে আসার পথে হামলার শিকার হন তারা।

অভিযোগসূত্রে জানা গেছে যে, ভূক্তভোগীদের নষ্ট হওয়া মোবাইল ফোনটি ঠিক করে নিয়ে বাড়িতে ফিরে যাওয়ার পথে সতিহাট বাজারের ভাঙ্গা ব্রিজের পার্শ্বে শহীদ মিনার মার্কেট এলাকায় পৌঁছালে পূর্বপরিকল্পিতভাবে ওঁৎ পেতে থাকা গনেশপুর গ্রামের অভিযুক্ত আকতার হোসেনের ছেলে সাদ্দাম হোসেন (৩০) এবং তার সহযোগী মীরপুর গ্রামের মৃত লুৎফর রহমানের ছেলে বিটাল (৩৭) সহ অজ্ঞাতনামা আরো ৩/৪ জন সংঘবদ্ধভাবে (লাঠি, লোহার রড, লাঠি, ছুরি, চাকু ইত্যাদি) দেশীয় অস্ত্রে- সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে গাড়ি থেকে টেনে হিচড়ে নামিয়ে এলোপাতাড়িভাবে মারপিট করতে থাকে।

এসময় অভিযুক্তদেরকে প্রতিহত করতে গেলে তারা আহসান হাবিবের বন্ধু আমিনুরের মোটরসাইকেলটি জোরপূর্বকভাবে কেড়ে নেয় ( যার আনুমানিক মূল্য ১ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা) এবং প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করতে থাকে। অতঃপর তারা ভাঙ্গা ব্রিজের পশ্চিম পার্শ্বে ক্যানেলের ধারে ভূক্তভোগীদেরকে নিয়ে গিয়ে ৬ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন।

এরপর টাকা দিতে অস্বীকার করায় তারা তাদের কাছে থাকা ৩০০ টাকা মূল্যের নন জুডিশিয়াল সাদা স্ট্যাম্পে সহি করতে বলে।

স্ট্যাম্পে সহি করতে রাজি না হওয়ায় অভিযুক্তরা মারপিটসহ খুন- জখমের ভয়ভীতি দেখাতে থাকে। পরে জীবনের ভয়ে তারা স্যাম্পে স্বাক্ষর দিতে বাধ্য হন ।

এরপর তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে উদ্ধার করে প্রাথমিকভাবে চিকিৎসা প্রদান করেন।

এখন পর্যন্ত তারা বিভিন্নভাবে হুমকি অব্যাহত রেখেছে বলে জানিয়েছেন ভূক্তভোগীরা।

কোন উপায় না পেয়ে তারা তাৎক্ষণিকভাবে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সরণাপন্ন হন।
এরপর তিনি আইনের আশ্রয় নেয়ার পরামর্শ দেন। সে মোতাবেক মান্দা থানায় একটি অভিযোগ দায়েরসহ সুষ্ঠ বিচার দাবি করেন তারা ।

এ ব্যাপারে মান্দা থানার ওসি- তদন্ত তারেকুর রহমান সরকার বলেন, অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
নির্ভীক সংবাদ24ডটকম

Total view = 106